দ্রুত গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল পাওয়ার জন্য কিছু করণীয়।

gg
fg

গুগল অ্যাডসেন্স এর জন্য আবেদন করার জন্যে যা যা করা দরকার?

আমি নিচে যে বিষয় বলেছি তা সব নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বলা কোনো ব্লগারের কোনো অভিজ্ঞতা থেকে না, আমি যেভাবে অ্যাডসেন্স পেয়েছি

এডসেন্স আবেদন করার পূর্ব চেক করে নিন আমি নিচে যেসব বিষয়ে বলেছি তা আপনার ব্লগে আছে কিনা বা আমার বলার সঙ্গে মিলে যাচ্ছে কিনা। যদি মিলে তাহলে আপনি নির্দ্বিধাই আবেদন করে দিতে পারেন।

১। ব্লগের বয়স ঠিক কত হওয়া উচিৎঃ

এই বিষয় টা প্রথমে তুল ধরার একটি বিশেষ কারন হল আমি যত অ্যাডসেন্স এর জন্য আবেদন করেছি তার সব কটি ব্লগের বয়স ছিল ৫-৬ মাস+। তাই আমি এটা বলবনা যে আপনার ব্লগ বয়স ৫-৬ মাস হতে হবে এটা আমার অভিজ্ঞতা থেকে বললাম, তবে ব্লগের বয়স যদি একটু বেশি হয় তাহলে একটু ভাল হয়, তবে ব্লগের মান, পোস্টের মান, যদি ভাল হয় তাহলে এর চেয়ে কম সময় হলেও কোনো সমস্যা নেই। তবে যদি প্রথম বারেই অ্যাডসেন্স পাওয়া দরকার এমন হয় তাহলে ব্লগে সময় দিয়ে কিছু ভাল পোস্ট করুন, কিছু ভাল ভিজিটর হবার পর আবেদন করুন এতে অ্যাডসেন্স ৯৯% পাবার চান্স থাকে।

২। ব্লগে পোস্ট কতগওলো থাকলে অ্যাডসেন্স এর ক্ষেত্রে ভাল ঃ

এরকম অনেকেই মনে করেন অ্যাডসেন্স এর জন্য ৫০ পোস্ট থাকা লাগবে কিন্তু এটা আমি বিশ্বাস করিনা, আমি আগেই বলেছি এই পোস্টে সম্পূর্ণ নিজের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা শেয়ার করবো। আপনি যদি ভাল মানের ১০-১৫ পোস্ট করেন এবং আপনার ব্লগের বয়স যদি একটু পুরনো হয়ে থাকে তাহলে আপনি এই পরিমান পোস্ট দিয়ে Adsense পেতে পারেন। উদাহারান স্বরূপ বলা যায় আমার একটা ব্লগে পোস্ট ২০ টি আছে কিন্তু আমি অ্যাডসেন্স এর জন্য আবেদন করেছিলাম ১৫ পোস্টে এবং বেশ সহজেই Approved ও পেয়েছি । তবে আমি বলব আপনি সময় নিয়ে একটু ভাল মানের বেশ কিছু পোস্ট লিখুন তারপর আবেদন করুন এতে disapproved হবার চান্স অনেকটা কমে যাই।

৩। ব্লগে ভিজিটর কত রাখলে অ্যাডসেন্স এর জন্য ভাল ঃ

আপনি বিশ্বাস করতে চাইবেন কিনা জানিনা আমি শেষ যে অ্যাডসেন্স Approved পাই সেই ব্লগে পোস্ট ছিল মাত্র ১৫ টি আর পেজ ভিউ প্রতিদিন ছিল ১০ এরও কম লাইফটাইম সবমিলিয়ে ২০০০মত। তবে অনেকেই বলে ব্লগে কমপক্ষে ১০০০ ভিজিটর থাকলে তবেই অ্যাডসেন্স পাবেন, কিন্তু আমার সঙ্গে এমন ২ বার হয়নি কম ভিজিটর দিয়েই আমি অ্যাডসেন্স পেয়ে গেছি, তবে আপনি চেস্টা করুন ভাল কিছু ভিজিটর বাড়াতে তারপর আপনি অ্যাডসেন্স এর জন্য আবেদন করুন। কারন ভাল ভিজিটর না থাকলে অ্যাডসেন্স পেয়েও তো কোনো লাভ নেই কারন ইনকাম হবেনা তাই মোটামোটি ভিজিটর ভালো বাড়ানোর চেস্টা করুন তারপর অবশ্যই আবেদন করুন।

৪। ব্লগকে অবশ্যই Webmastertools এ পরিনত করুন ঃ

আপনি যদি গুগল থেকে ভালো ভিজিটর পেতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই webmastertools এ ব্লগ পরিনত করতে হবে, আর যদি না করেন তাহলে আপনার অ্যাডসেন্স পাবার আশাও অনেকাংশে কমে যাবে। তাই এই বিষয় টি ভাল ভাবে খেয়াল রাখেবেন আপনার ব্লগ webmastertools এ সাবমিট আছে কিনা।

৫। ব্লগ পোস্টে কত ওয়ার্ড এর পোস্ট দিলে অ্যাডসেন্স পেতে সুবিধা ঃ

দেখুন এটা তেমন কোন কথাই না, ধরুন আপনি একটি পোস্ট লিখছেন যেটাতে ওয়ার্ড এর প্রয়োজন ৩০০ কিন্তু আপনি শুধু শুধু ১০০০-২০০০ লিখবেন কেন! তবে হ্যা বেশি ওয়ার্ড এর পোস্ট থাকলে ভাল গুগল সবসময় ভাল চোখে দেখে থাকে, তবে আমার অভিজ্ঞতার সঙ্গে এই ওয়ার্ড এর সঙ্গে অ্যাডসেন্স এর তেমন সম্পর্ক খুজে পাচ্ছিনা। তবে আপনি চেষ্টা করবেন একটু উন্নত মানের পোস্ট লিখতে যাতে ভিজিটর আপনার পোস্ট পড়ে বেশ আনান্দ পাই। তবে পোস্ট ওয়ার্ড এর সঙ্গে অ্যাডসেন্স এর কোন সম্পর্কে আছে বলে আমার মনে হয়না, শুধু কিছু ভাল মানের কন্টেন্ট লিখুন এখুন ভাল ভালো মানের পোস্ট বলতে কি বুঝাতে চাইছি বুঝাতেই পারছেন 😉।

৬। ব্লগের ডিজাইন কতটা গুরুত্বপূর্ণ অ্যাডসেন্স এর জন্য ঃ

আমি এমন অনেক ব্লগারকে দেখেছি Adsense নিয়ে পোস্ট লিখেছে এবং সেখানে এই ডিজাইন এর বিষয় টিকে সিরিয়াস ভাবে তুলে ধরেছে, কিন্তু আমি এখুন পর্যন্ত এমন কিছু সাধারন ব্লগে অ্যাডসেন্স দেখছি যাদের ব্লগ ডিজাইন সব থেকে নিম্ন মানের। তবে চেস্টা করুন একটু ডিজাইন টা মোটামুটি সাদা মাটা রাখতে।আপনি ফ্রী থিম ব্যবহার করুন আর পেইড কোন সমস্যা নয়, আমার মনে হয় এই ডিজাইন এর বিষয় টা নিজের কাছে শুধু শুধু ব্লগ ভারি করবেন না ইউজার ফ্রেন্ডলি করবেন তাহলেই আর চিন্তা নেই

৭। Blogger না WordPress অ্যাডসেন্স এর জন্য কোনটা ভাল ঃ

আমি এখুন পর্যন্ত সবমিলিয়ে ৩ টি অ্যাডসেন্স Approved পেয়েছি যার মধ্যে ২ টি ব্লগার প্লাটফর্ম দিয়ে বানান ব্লগ আর একটি বানানো ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে 😊। তবে ব্লগার যেহেতু গুগলের আর অ্যাডসেন্সও গুগলের তাই একটু হাল্কা সুবিধা পেলেও পেতে পারেন তবে আমি তেমন পার্থক্য লক্ষ করিনি, সম্পূর্ণ নিজস্ব অভিজ্ঞতা বললাম। অ্যাডসেন্স পেতে প্লাটফর্ম নয় কন্টেন্ট টাই মেইন বিষয় তাই সেই দিকটাই যত বেশি সম্ভব জোর দিন।

৮।যেসব ডোমেইন ব্যবহার করা উচিৎ ঃ

আপনি আপনার ব্লগে সহজেই যেকোনো টপ লেবেল ডোমেইন ব্যবহার করতে পারেন যেমন .com, .in. .net, .org ইত্যাদি তবে ভুলেও Free Domain দিয়ে আবেদন করেন না যদিও আমি পরীক্ষা করিনি তবে ফ্রী ডোমেইন দিয়ে না পাবার চান্স প্রায় ৯৯%, ফ্রী ডোমেইন বলতে আমি .TK, .ML এই সব ফালতু ডোমেইন গুলর কথা বুঝাতে চাইছি। যখুন ব্লগে অ্যাডসেন্স ব্যবহার করবেন এবং অর্থ উপার্জন করবেন তখুন একটু নিজের পকেট থেকে টাকা ব্যয় করুন না মশাই 😉। আর হ্যা sub-domain দিয়েও আমি চেস্টা করিনি, তবে শেষ কথা একটা টপ লেবেল ডোমেইন দিয়েই Adsense আবেদন করুন।

৯। ব্লগে ক্র্যাক,প্যাচ, কপি পোস্ট,মুভি, গান,ইত্যাদি নিয়ে পোস্ট করা যাবে কি না ঃ

দেখুন অ্যাডসেন্স বলে না আপনি যদি ব্লগার প্লাটফর্ম ব্যবহার করে থাকেন এবং ক্র্যাক, প্যাচ, Copy pest করেন তবুও ব্লগ ডিলিট হয়ে যাই আর এটা তো অ্যাডসেন্স এর বিষয়।এবং আমি নিজেও এসো বন্ধু ব্লগে গান, মুভি, ক্র্যাক সফটওয়্যার,কপি পেস্ট অনেক শেয়ার করেছিলাম তবে সব পোস্ট ডিলিট করি তারপর আবেদন করি আপনিও সেটাই করুন তা নাহলে মুশকিল হয়ে যাবে, এখুন আপনার মনে প্রশ্ন থাকতে পারে, বাংলার কিছু বড় ব্লগ গুল তো এই সব কটেন্ট দিয়েও অ্যাডসেন্স পেয়েছে তাহলে বলি গুগল যদি একবার ধরতে পারে তাহলে বিনা নোটিশে ব্যান্ড হবে সেই সব অ্যাকাউন্টগুলো। তাই এই বিষয় টি সব চেয়ে বেশি মন দিয়ে ভাববেন।

১০। অ্যাডসেন্স আবেদনের আগে ব্লগে যে সকল পেজ থাকা প্রয়োজন ঃ

এই বিষয়টি অনেক গুরুত্বপূর্ণ, আপনি যখন Adsense এর জন্য আবেদন করতে যাবেন তখন নিচের যে যে পেজ গুল আমি বলেছি সেগুল অবশ্যই আপনার মেনু তে অ্যাড করবেন, তা না হলে সমস্যায় পড়ে যাবেন। privacy policy page ব্লগ বা লেখক সম্পর্কে নিজের একটি পেজ বানাবেন যোগাযোগের পেজ বানাবেন Disclaimer পেজ বানাতে পারেন না হলেও সমস্যা নেই। site map পেজ বানাবেন। উপরের পেজ গুল অবশ্যই নিজের ব্লগে মেনু কিংবা সাইড বারে সেইভ করে নিবেন, তা নাহলে Approved হবে না আপনার অ্যাকাউন্ট।

১১। Blogspot.com এই ডোমেইন দিয়ে অ্যাডসেন্স পাওয়া যাবে কি না? ঃ

এই বিষয় টি আমি সত্যি ক্লিয়ারনা তবে এখুন মনে হয় অ্যাডসেন্স দেইনা, তবে আগে দিত, আপনি সব সময় Top-Level ডোমেইন দিয়ে চেস্টা করুন অবশ্যই Adsense পেয়ে যাবেন।