ফেসবুকে ভুয়া খবর চেনার সহজ উপায়।

  ফেসবুকে ভুয়া খবর চেনার উপায়

ব্রিটেনের পত্র-পত্রিকায় আজ পাতাজুড়ে বিজ্ঞাপন দিয়ে ভুয়া খবর সনাক্ত করতে ১০ টি পরামর্শ দিয়েছে ফেসবুক।

খবরের শিরোনামের দিকে, বানাব এবং ছবির দিকে বিশেষভাবে নজর দিতে বলেছে।

অনলাইনে, বিশেষ করে ফেসবুক সহ বিভিন্ন সামাজিক গণমাধ্যমে নানা স্বার্থ উদ্ধারে ভুয়া খবরের উৎপাত নিয়ে দিন দিন উদ্বেগ বাড়ছে।

এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য একে একে বিভিন্ন সরকারও চাপ দিতে শুরু করেছে গুগল, ফেসবুক সহ ইন্টারনেট ভিত্তিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে। গত মাসে ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন দলের একজন প্রভাবশালী এমপি ডেমিয়েন কলিন্স ৮ই জুনের সাধারণ নির্বাচনের আগে ভুয়া খবর ঠেকাতে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানান।

তারই প্রেক্ষাপটে ফেসবুকের এই উদ্যোগ। দশটি পরামর্শ দেওয়া হয়েছে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের:

১.শিরোনাম নিয়ে সন্দিহান হতে হবে – ভুয়া খবরের শিরোনামগুলোতে চমক দেওয়া অবাস্তব কথাবার্তা থাকে । সাধারণত লেখা হয় ক্যাপিটাল লেটারে। শেষে দাড়ির বদলে একটি বিস্ময়সূচক চিহ্ন থাকে।

২. ইউআরএল লক্ষ্য করুন – সন্দেহজনক ইউআরএল অর্থাৎ ওয়েবসাইটের ঠিকানা দেখলে মূল ওয়েবসাইটে গিয়ে পরীক্ষা করা উচিৎ।

৩. খবরের সূত্র খেয়াল করুন- যে সূত্রে খবরটি আসছে সেটি কতটা নির্ভরযোগ্য তা যাচাই করা জরুরী।

৪. বানান বা ফরম্যাটিং খেয়াল করুন – ভুয়া খবর ছড়ানো ওয়েবসাইটগুলোতে বানান ভুল থাকে, খবরের ফরম্যাটে গণ্ডগোল থাকে।

৫. ছবি লক্ষ্য করুন – ভুয়া খবরে ব্যবহৃত ছবি বা ভিডিওতে অনেক কারসাজি করা থাকে। সন্দেহ হলে যাচাই করা উচিৎ।

৬. দিনক্ষণের দিকটি খেয়াল করুন – ভুয়া খবরগুলোতে অনেক সময় ঘটনার দিনক্ষণে পরিষ্কার অসঙ্গতি চোখে পড়ে।

৭. প্রমাণ যাচাই করুন – লেখকের পরিচয় যাচাই করা উচিৎ। বেনামি সূত্রে লেখা কোনো সংবাদ নিয়ে সন্দিহান হতে হবে।

৮. অন্য জায়গায় খবরটি দেখুন – অন্য কোনো সংবাদ মাধ্যমে যদি সেই খবর প্রকাশিত না হয়, তাহলে সেটি ভুয়া হওয়ার সম্ভাবনা প্রবর।

৯. খবরটি কি কৌতুক? – খবর কি আসল নাকি স্যাটায়ার অর্থাৎ কৌতুক সেটা বিবেচনা করা উচিৎ। যে সূত্রে খবর দেয়া হচ্ছে সেটি এই ধরণের কৌতুকপূর্ণ খবর ছড়ায় কিনা তা পরীক্ষা করা উচিৎ।

১০. ইচ্ছে করে মিথ্যা ছড়ানো হয় – কোনো খবর পড়ার পর চিন্তা করুন। বিশ্বাসযোগ্য মনে হলেই শুধু শেয়ার করবেন, অথবা নয়।

আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্লক হয়ে গেলে যা করতে হবে!

শনিবার সকালে ঘুম থেকে উঠেই বাংলাদেশের অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারীর মাথায় যেনো আকাশ ভেঙ্গে পড়েছে।

শুক্রবার গভীর রাতেও যারা ফেসবুক চালিয়ে ঘুমিয়েছেন, তারাই পরদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখতে পেলেন যে, তার ফেসবুক একাউন্টটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এমনটা হলে খুব বেশি চিন্তিত হওয়ার প্রয়োজন নেই। মূলত, বিশ্বজুড়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ফেসবুক নকল একাউন্টের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করায় এমনটা হচ্ছে। নিজেকে আসল প্রমাণিত করার কয়েকটি ধাপ পার করে খুব সহজেই আপনি আপনার একাউন্টটি ফেরত পেতে পারেন।

নতুন একটি পেজ ওপেন হলে সেই পেজের নির্ধারিত বক্সে আপনার ই-মেইল আইডি অথবা ফেসবুকে নিবন্ধিত মোবাইল ফোন নম্বরটি লিখুন।

এরপর পরবর্তী বক্সে ফেসবুকে ঠিক যে নামে আপনার একাউন্টটি ছিলো সেই বানানে নামটি লিখুন।

সর্বশেষ আপনিই যে একাউন্টটির বৈধ মালিক তা প্রমাণ করতে জাতীয় পরিচয় পত্র বা পাসপোর্ট কিংবা লিগ্যাল কোনো ডকুমেন্ট আপলোড করতে হবে।

আপনার ফেসবুকের নাম যদি আপলোডকৃত ডকুমেন্টের সাথে মিল না থাকে তাহলে Additional info বক্সে এই সম্পর্কে বিস্তারিত লিখতে পারেন। এছাড়া অন্য কোনো প্রমাণ সম্পর্কেও এই বক্সে লিখতে পারেন।

সবশেষে সেন্ড বাটনে চেপে ওই পেজ থেকে বেরিয়ে আসুন। এবার আপনার আবেদনটি ভেরিফাই করতে ৭২ ঘণ্টা সময় নেবে ফেসবুক।

যদি আপনার প্রদেয় প্রমাণাদি ফেসবুক গ্রহণযোগ্য বলে মনে করে তাহলে খুব তাড়াতাড়িই আপনি আপনার একাউন্টটি ফেরত পাবেন।

জেনে নিন, মেসেঞ্জারের অজানা সব সুবিধা

তাৎক্ষণিক বার্তা আদান-প্রদানের অ্যাপ মেসেঞ্জারের বর্তমান ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১০০ কোটির বেশি। সংখ্যাটা প্রতিনিয়ত বাড়ছে।

যোগাযোগের এই মাধ্যম প্রতিনিয়ত নতুন সুবিধা যোগ করছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফেসবুক। বার্তা আদান-প্রদান ছাড়াও অডিও-ভিডিও কল করার সুবিধা আছে এতে।

আরও অনেক সুবিধা আছে, যা অনেক ব্যবহারকারীরই অজানা। এমন কিছু সুবিধার উল্লেখ থাকছে এখানে। তবে সুবিধাগুলো পেতে নামিয়ে নিতে হবে মেসেঞ্জারের সর্বশেষ সংস্করণ।

▶ছবির মধ্যে লেখা বা আঁকা
মেসেঞ্জারে ছবি পাঠানোর সময় সে ছবিতে চাইলে কিছু লিখে বা এঁকে দিতে পারেন। ছবি চিহ্নিত আইকন চাপলে আপনার ফোনের গ্যালারিতে থাকা ছবিগুলো দেখাবে। যেকোনো ছবি নির্বাচন করলে তাতে প্রেরণ ও পেনসিল আইকন আসবে। পেনসিল আইকনে চাপলেই আঁকা বা লেখার সুযোগ পাবেন।

▶জেনে নিন বার্তা পৌঁছাল কি না
মেসেঞ্জারে কোনো বার্তা পাঠালে সেটির ডানে একটি নীল রঙের বৃত্ত দেখায়। বার্তা পৌঁছে গেলে বৃত্তটির মধ্যে টিক চিহ্ন উঠবে। প্রাপক অনলাইনে থাকলে টিক চিহ্নসহ বৃত্ত নীল রঙে ভরে যাবে। আর প্রাপক বার্তা পড়লে বৃত্তটিতে প্রাপকের ছবি দেখাবে।

▶ভয়েস মেসেজ পাঠাতে চাইলে
ভয়েস মেসেজ পাঠাতে মেসেঞ্জার অ্যাপের প্রাপকের ইনবক্সে ঢুকলে নিচের সারিতে মাইক্রোফোন চিহ্ন দেখতে পাবেন। তাতে ক্লিক করলেই রেকর্ড লেখা লাল বৃত্ত আসবে। লাল বৃত্তে চেপে ধরে রেখে সর্বোচ্চ এক মিনিটের বার্তা রেকর্ড করতে পারবেন। রেকর্ড হয়ে গেলে ছেড়ে দিন।

▶অবস্থানের ছবি পাঠানো
মেসেঞ্জারে বার্তা আদান-প্রদানের সময় আপনার অবস্থানের চিত্রও পাঠাতে পারবেন। এ জন্য নিচের সারিতে লোকেশন আইকন চাপলেই মেসেঞ্জার আপনার অবস্থান দেখানোর অনুমতি চাইবে, অনুমতি দিলে আপনার বর্তমান অবস্থান মানচিত্রে দেখাবে।

▶নোটিফিকেশন বন্ধ করতে
মেসেঞ্জার অ্যাপে কেউ বার্তা পাঠালে তা নোটিফিকেশন দেখায়। কখনো কখনো তা বিরক্তির কারণ হতে পারে। তাই মেসেঞ্জারের নির্দিষ্ট কোনো ব্যক্তির নোটিফিকেশন বন্ধ রাখতে ইনবক্সে গিয়ে ওপরে ডান কোনায় i লেখা আইকনে এবং আইওএস হলে ওপরে নামের মধ্যে চাপলে নোটিফিকেশন অপশনটি দেখাবে।

যে মেসেজে হারাবে ফেসবুক আইডি

আপনি ফেসবুকের সক্রিয় ব্যবহারকারী নাকি নিষ্ক্রিয়- তা যাচাই করার জন্য আমরা এই মেসেজটি পাঠাচ্ছি। আপনি যদি ফেসবুকে সক্রিয় হয়ে থাকেন, তাহলে সক্রিয়তার প্রমাণ দেয়ার জন্য মেসেজটি কপি করে আরো ২৫ জনকে পাঠান। দুইসপ্তাহের মধ্যে এই মেসেজটি ২৫ জনকে না পাঠালে বন্ধ হয়ে যাবে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট।
ফেসবুকের সহ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জুকারবার্গের নাম উল্লেখ করে আসা এই মেসেজ দেশের অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারী পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন।
১৬৫ শব্দের এই মেসেজ মার্ক জুকারবার্গের নির্দেশ বলেও উল্লেখ রয়েছে। অনেকেই ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হারানোর ভয়ে আরো ২৫ জনকে মেসেজটি কপি করে পাঠাচ্ছেন। মূলত এটি সম্পূর্ণ ভুয়া একটি তথ্য, যাকে বিশ্বাসযোগ্য করার জন্য জাকারবার্গের নাম ব্যাবহার করা হচ্ছে। সত্যিটা হলো ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এমন কোনো মেসেজ পাঠাচ্ছে না। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, ১৪ এপ্রিল থেকে ফেক (ভুয়া) আইডি নিধন শুরু করেছে ফেসবুক সিকিউরিটি টিম।
এ অভিযান চলবে আগামী ছয় মাস। ফেসবুক সিকিউরিটি টিমের এক পোস্টে বলা হয়েছে, ভুয়া অ্যাকাউন্ট ঠেকানোর কার্যকর উপায় এ ব্যবস্থা।
আর এই অভিযানকে কেন্দ্র করে অ্যাকাউন্ট হারানোর ভয় করছেন অনেকে। অনেকের রিয়েল (আসল) অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন বাংলাদেশি ফেসবুক ব্যাবহারকারীরা।
আর তাদের এই আতঙ্ককে কাজে লাগিয়ে বোকা বানাচ্ছে স্প্যামাররা। কী ক্ষতি হতে পারে এই মেসেজ পাঠালে?
মেসেজেটিতে কোনো ভাইরাসের লিংক না দেয়া হলেও অন্যকে বিরক্ত করার উদ্দেশ্যেই এটি ফেসবুকে ছড়ানো হয়েছে। কিন্তু আপনি মেসেজটি বিশ্বাস করে ২৫ জনকে পাঠালে কেউ যদি আপনার অ্যাকাউন্টে স্প্যামার হিসেবে রিপোর্ট করে তাহলে আপনার প্রিয় অ্যাকাউন্টটিও ডিজেবল হয়ে যেতে পারে।
তাই, সতর্ক থাকুন এ ধরনের ভুয়া মেসেজ সম্পর্কে এবং এ ধরনের মেসেজ পেলে তা আরো ২৫জনকে পাঠিয়ে বিরক্ত করা থেকে বিরত থাকুন।
লেখক: তানজিম আল ফাহিম, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও), এরিনা ওয়েব

যা করলে আপনার ফেসবুক থাকবে সুরক্ষিত!

ফেসবুক একনাম্বার সোস্যাল সাইট, ফেসবুক আমরা প্রায় সবাই ব্যবহার করি। সারাদিন ফেসবুকে থাকেন কত বন্ধু আপনার। হঠাৎ একদিন দেখলেন আপনার ফেসবুকটি বন্ধ হয়ে গেছে আর খুলছে না। তখন অবশ্যই অনেক মন খারাপ হবে।

আসুন জেনে নেই কিভাবে রাখবেন আপনার ফেসবুক সুরক্ষিত–
১। কঠিন পাসওয়ার্ড দিনঃ
ফেসবুক নিরাপদ রাখার ক্ষেত্রে পাসওয়ার্ড খুব জরুরী একটা বিষয়। আপনার পাসওয়ার্ড যত মজবুত হবে অ্যাকাউন্ট তত নিরাপদ হবে। অনেকেই আছেন যারা এই দিকটা খেয়াল করে না। তারা পাসওয়ার্ড অনেক ছোট বা সহজ ভাবে দেন। যার ফলে একদিন দেখা যায় তার ফেসবুক বন্ধ হয়ে গেছে।

পাসওয়ার্ড দেবার ক্ষেত্রে কিছু ধাপ মাথায় রেখে কাজ করা উচিৎ –
ক) পাসওয়ার্ড কখনো আপনার মোবাইল নাম্বার দিবেন না।
খ) আপনার নাম বা আপনার কোন প্রিয় ব্যক্তির নাম দিবেন না।
গ) আপনার পোষা প্রাণির নাম দিবেন না।
ঘ)পাসওয়ার্ড অবশ্যই ১৫ থেকে ৩০ অক্ষরের মধ্যে দিবেন এবং সেখানে কিছু অক্ষর,নাম্বার, কিছু সিম্বল দিবেন। আরো ভালো হয় যদি মাঝে কোন স্পেচ দেন। যেমন- jhb768jhbc@#~kha-/
ঙ) এবং পাসওয়ার্ড অবশ্যই নিয়মিত আপডেট করবেন।

আপনার পাসওয়ার্ড যেভাবে পরিবর্তন করবেনঃ
প্রথমে Account Settings এ যান তারপর দেখুন পাসওয়ার্ড অপশন আছে এবার এখানে দেখুন এডিট লেখা আছে এডিট এ ক্লিক করুন আপনার এখনকার পাসওয়ার্ড দিন তারপর দুইবার আপনার নতুন পাসওয়ার্ড দিন এবার সেভ করুন।

২। বিশ্বাশযোগ্য নাম্বার যোগ করেঃ

এই বিশ্বস্ত নাম্বার যোগ করে যদি কখনো ফেসবুকে সমস্যা হয় তাহলে আপনি তাদের মাধ্যমে আপনার অ্যাকাউন্টকে ফিরে পেতে পারেন। এখানে আপনি তিনজনকে বিশ্বস্ত নাম্বার হিসাবে রাখতে পারবেন। অবশ্যই আপনি যাদের চেনেন এবং যারা বিপদে সাহায্য করবে তাদের সিলেক্ট করবেন।

যেভাবে নাম্বার টি সিলেক্ট করবেন
আপনার ফেসবুক Account Setting থেকে Security তে যান এখানে Trusted Contact এর এডিট এ ক্লিক করে তিনজন কে সিলেক্ট করে সেভ করুন।

৩। ইমেইল এবং পাসওয়ার্ড ভেরিফিকেশনঃ
ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলার সময় একটি ভেরিফিকেশন কোড পাঠায় ইমেইলে অনেকে সেটি কনফার্ম করে না। অবশ্যই সেটি কনফার্ম করে নিন। এবং আপনার মোবাইল নাম্বার দিয়ে ফেসবুক ভেরিফিকেশন করে নিন।

যেভাবে মোবাইল ভেরিফিকেশন করবেনঃ
প্রথমে ফেসবুক Account Security তে যান। তারপর মোবাইল এ ক্লিক করুন এবার এখানে একটি মোবাইল নাম্বার দিন, দেখুন আপনার মোবাইল এ একটি মেসেজ আসছে সেখানে একটি কোড দেয়া আছে সেটি কনফার্ম করুন।

৪। মোবাইল লগিন কনফার্ম কোডঃ
যখন আপনি আপনার ফেসবুকে লগিন করবেন তখন ফেসবুক থেকে আপনার মোবাইল এ একটি কনফার্ম কোড পাঠাবে সেই কোডটি দিয়ে আপনাকে লগইন কনফার্ম করতে হবে। এটির মাধ্যমে আপনি যখনি লগইন করবেন তখনই আপনাকে এই কোডটি দিয়ে কনফার্ম করতে হবে। তবে আপনার নিজের পিসি দিয়ে অবশ্য বারবার কোড দিতে হবে না।
যখন অন্য কোন ব্যক্তি আপনার ফেসবুকে লগিন করার চেষ্টা করবে তখন আপনার মোবাইল এ কোড আসবে তার মানে আপনি যখন কোডটি পাবেন তখন আপনি বুঝতে পারবেন যে অন্য কেউ আপনার অ্যাকাউন্ট এ ঢুকতে চেষ্টা করছে। তখনি আপনি ব্যবস্হা নিতে পারবেন।
ফেসবুক অ্যাকাউন্ট রাখুন সুরক্ষিত, থাকুন চিন্তা মুক্ত!

কিভাবে এটি করবেনঃ
প্রথমে আপনার অ্যাকাউন্ট এর Account Setting এ যান, তারপর Security Setting এ যান এবার Login Approvals এ ক্লিক করুন । Require a security code to access my account from unknown browsers, এটিতে টিক দিন এবার একটি বক্স আসবে। সেখানে Get Started এ ক্লিক করুন।

এবার আর একটি বক্স আসবে এখান থেকে আপনার কি ধরনের মোবাইল সেটা সিলেক্ট করুন এবার Continue এ ক্লিক করুন। আপনার যদি Android/I phone ফোন হয় তাহলে তাহলে আপনার ফোন থেকে ফেসবুক অ্যাপ্লিকেশান এ ক্লিক করে এটি অ্যাক্টিভ করতে হবে। অন্য কোন ফোন হলে আপনাকে ফেসবুক একটি কোড দিবে সেটি দিয়ে আপনাকে কনফার্ম করতে হবে।

কীভাবে বুঝবেন আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি নিরাপদ নয়?

ফেসবুকের প্রোটেক্ট অ্যান্ড কেয়ার টিমের টেকনিক্যাল প্রোগ্রাম ম্যানেজার শবনম শেখ ১৩ এপ্রিল থেকে ভুয়া অ্যাকাউন্ট এবং ১৪ এপ্রিল থেকে স্প্যামারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ শুরুর ঘোষণা দিয়েছেন।

ফলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পাশাপাশি বাংলাদেশেও ফেসবুকে ফেক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার কার্যক্রম শুরু করেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। ভুয়া অ্যাকাউন্টের পাশাপাশি সন্দেহের তালিকায় ফেলে অনেকের আসল অ্যাকাউন্টও বন্ধ করে দিচ্ছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

সুতরাং জেনে নিন, কীভাবে বুঝবেন যে, আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি নিরাপদ নয়? অর্থাৎ ফেসবুকের সন্দেহের তালিকায় পড়ে বন্ধ হয়ে যেতে পারে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি।

* ইমেইল কিংবা মোবাইল ফেরিভাইড করা না থাকলে।

* প্রোফাইলে নিজের ছবির বদলে কোনো পুতুল কিংবা অন্য কোনো ছবি ব্যবহার করে থাকলে।

* ফেসবুক আইডি অনেকদিন পর পর লগিন করলে।

* ফেসবুক অ্যাড অ্যাকাউন্টে ডলার অপরিশোধ রাখলে।

* অটো লাইক ব্যবহার কিংবা স্প্যাম করলে।

ফেসবুকের টেকনিক্যাল প্রোগ্রাম ম্যানেজার শাবনাম শেখ ফেসবুকের সিকিউরিটি ব্লগে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ফেসবুকে যখন কেউ নিজের প্রতিনিধিত্ব করেন, তখন তিনি বাস্তব জীবনের মতো দায়িত্বশীলতা দেখান। ভুয়া অ্যাকাউন্টে এ নিয়ম মানা হয় না। ভুয়া অ্যাকাউন্টগুলো মূলত স্প্যাম ছাড়তে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

তাই এ অ্যাকাউন্টগুলোর কারণে সাধারণ ব্যবহারকারীরা বিভ্রান্ত হয়ে যান। প্রাথমিকভাবে কতগুলো বিষয়কে ভুয়া চিহ্নিত করার উপায় হিসেবে দেখিয়েছে ফেসবুক। সেগুলো হচ্ছে- একই প্রকারের পোস্ট বারবার দেয়া, একই ধরনের লিংক অস্বাভাবিক মাত্রায় শেয়ার করা, পর্নো ওয়েবসাইটের লিংক দেয়া, ছবি ও ভিডিও শেয়ার অস্বাভাবিকসহ এ জাতীয় আইডিগুলো চিহ্নিত করে বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে।